1. ashton_hobson@mstreetyoga.com : ashtonhobson10 :
  2. admin@dainikfatikchhari.com : ForkanMahmud :
বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ০৮:৩৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
ফটিকছড়িতে অভ্যন্তরীন আমন ধান চাল সংগ্রহ ২০২০-২১ উদ্বোধন ঋণের টাকা পরিশোধে ব্যর্থ হয়ে গৃহবধু গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্নহত্যা ফটিকছড়িতে মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে মাঠে নেমেছে উপজেলা প্রশাসন অগ্রণী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার পদে পদোন্নতি পেয়েছেন বাবু রুপন কুমার ফটিকছড়িতে গাউসিয়া কমিটির করোনা সুরক্ষায় জনসচেতনতা ও মাস্ক বিতরণ কর্মসুচী পালিত কাতারে রোড এক্সিডেন্টে কাঞ্চন নগরের যুবক বাবলুর মৃত্যু ধর্মপুর ইউপি চেয়ারম্যান কাপ ফুটবল টুনামেন্ট ২০২০ র উদ্ভোধন কোনো রাজনৈতিক দলের রাজনৈতিক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছিনা- আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী ফটিকছড়িতে দুই শতাধিক ইয়াবাসহ যুবক আটক ফটিকছড়িতে পবিত্র মিলাদুন্নবী (সাঃ) উদযাপন উপলক্ষে ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত:

ফ্রান্সের ‘দ্যা শার্লি হেবদো’-তে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় মুহাম্মদ (সা.)-কে কটাক্ষের প্রতিবাদে (বিটিএফ) এর স্বারকলিপি প্রদান

এডিটর-দৈনিক ফটিকছড়ি
  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ৫ নভেম্বর, ২০২০
  • ৭৫ বার

নিউজ ডেস্ক: ফ্রান্সের ‘দ্যা শার্লি হেবদো’-তে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় মুহাম্মদ (সা.)-কে কটাক্ষের প্রতিবাদে বাংলাদেশ তরীকত ফেডারেশন পক্ষ থেকে স্বারকলিপি প্রদান করেন- সাংসদ সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী।

বুধবার (০৪ নভেম্বর) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী জনাব ডাঃ এ. কে. আব্দুল মোমেন এমপির সাথে সাক্ষাৎ করে ফ্রান্সের ‘দ্যা শার্লি হেবদো’-তে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় মুহাম্মদ (সা.)-কে কটাক্ষের প্রতিবাদে বাংলাদেশ তরীকত ফেডারেশন পক্ষ থেকে এই স্বারকলিপি প্রদান করেন- সাংসদ সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, ১৪ দলের অন্যতম শরিক দল, বাংলাদেশ তরীকত ফেডারেশন (বিটিএফ) এর চেয়ারম্যান, চট্টগ্রাম-২ ফটিকছড়ি আসনের সংসদ সদস্য, আলহাজ্ব সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী, বিটিএফ এর উপদেষ্টা আলহাজ্ব সৈয়দ মুতাসিব বিল্লাহ রাব্বানী, বিটিএফ এর যুগ্ম মহাসচিব আলহাজ্ব সৈয়দ তৈয়বুল বশর মাইজভাণ্ডারী, বিটিএফ এর যুগ্ম মহাসচিব ও মুখপাত্র আলহাজ্ব মুহাম্মদ আলী ফারুখী, বিটিএফ সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব শাহ মুহাম্মদ আলী হোসাইন ও বিটিএফ এর সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব মুহাম্মদ সেলিম মিয়াজি প্রমূখ।

মাননীয় সাংসদ আলহাজ্ব সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী বলেন, সম্প্রতি ফ্রান্সের ‘দ্যা শার্লি হেবদো’-তে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-কে কটাক্ষ করে ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ করা হয়েছে। যা জাতিসংঘের ধর্মীয় স্বাধীনতা বিধান সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। মহানবী (সা.) ছিলেন বিশ্বমানবতার মুক্তির দিশারী। জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সমগ্র বিশ্ববাসীর জন্য তিনি ছিলেন করুণার মূর্তপ্রতীক। তাঁর পুরো জীবন ও আদর্শ সকলের জন্যই অনুসরণীয় ও অনুকরণীয়। জেহালতের যুগের সকল কুসংস্কার ও অন্ধকারাচ্ছন্নতাকে দূরীভুত করে মানবেতিহাসের সর্বোৎকৃষ্ট এক যুগের নির্মাতা ছিলেন তিনি; যেখানে সকল মানুষের শান্তি, নিরাপত্তা ও মানবাধিকার নিশ্চিত হয়েছিল। আজকের এই আধুনিক বিশ্বেও তাঁর জীবনাদর্শ সমানভাবে প্রযোজ্য। তাই তাঁকে নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনী কোনো সভ্য সমাজের কাজ হতে পারে না। ফ্রান্সের এই ঘটনা পৃথিবীর তাবত মুসলমানকে আঘাত দিয়েছে; কেননা আমরা নিজেদের জীবনের চাইতেও মহানবীকে (সা.) অধিক ভালোবাসি; তাঁর প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা, ভক্তি ও ভালোবাসা হৃদয়-গভীর থেকে উৎসারিত। তাই কেউ তাঁর অবমাননা করলে আমাদের হৃদয় ভেঙ্গে যায়। জীবন পরিচালনায় আমরা তাঁকে অনুসরণ করি; কেননা এটা আমাদের ঈমানের অবিচ্ছেদ্য অংশ। মহান আল্লাহ তাআলার নির্দেশ-বলে আমরা ইহকালীন ও পারলৌকিক উভয় জগতে তাঁকেই আদর্শ হিসেবে ধারণ করি। গোটা পৃথিবীর সকল মানুষের শান্তি, কল্যাণ ও নিরাপত্তার বিধান করেছেন তিনি; তাই সকল মানুষের উচিত তাঁর প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা।
আমরা মহানবীর (সা.) শিক্ষা অনুযায়ী নিজ ধর্মের আনুগত্য ও অন্য ধর্মের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করি; কখনোই ভিন্ন মতাবলম্বীদের অসম্মান ও অকল্যাণ ইসলাম সমর্থন করে না। ধর্মের নামে জোর-জবরদস্তি, অগ্নি সংযোগ ও মানুষ হত্যার অনুমোদনও দেয় না ইসলাম; বরং সমাজের সর্বত্র শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই ইসলামের সুমহান আদর্শ। অন্যদিকে এ ধরনের ব্যঙ্গচিত্র জাতিসংঘের ‘হেইট স্পিচ’ বিধানের পরিপন্থী। পৃথিবীর প্রথম লিখিত সংবিধান ‘মদিনার সনদ’-এর মাধ্যমে মহানবী (সা.) সকল জাতির স্বাধীনতা ও অধিকার নিশ্চিত করেছিলেন। বিদায় হজ্বের ভাষণে মানবতার মুক্তির দিশা দিয়েছেন; সেই মহানবীকে (সা.) নিয়ে ফ্রান্স সরকারের অবমাননায় আমরা ক্ষুব্ধ, মর্মাহত ও বেদনাগ্রস্থ।

এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা নিম্মে প্রস্তাবাবলি পেশ করিলাম।

১. জাতিসংঘের মাধ্যমে এই ঘটনার প্রতিবাদ জানানো হোক যেন ভবিষ্যতে কোনো দেশ অনুরূপ ঘটনার অবতারণা করতে না পারে।

২. ওআইসি-এর মাধ্যমে এর প্রতিবাদ জানানো হোক।

৩. ফ্রান্স রাষ্ট্রদূতকে তলব করে আমাদের হৃদয়ের আঘাত ও সংক্ষুব্ধ হওয়ার বিষয়ে জানানো হোক এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের কার্যক্রম যেন আর না ঘটে সেই মর্মে সতর্ক করা হোক।

৪. জাতীয় সংসদের মাধ্যমে প্রতিবাদ করা হোক।

আপনিও শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরি আরো খবর...

ads

সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazafatikcha54